• রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৯:২২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
পাহাড় খেকো সিন্ডিকেটের হাতে উখিয়া উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা পর্যুদস্ত, থানায় মামলা। উখিয়া কুতুপালং বাজার ব্যবসায়ী সমবায় সমিতি লিঃ এর নির্বাচনে-জানে আলম সভাপতি ও মোঃ আলী সাঃ সম্পাদক নির্বাচিত। উখিয়া উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম নুরুল ইসলাম চৌধুরী স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষা-২০২২ অনুষ্ঠিত ফলিয়াপাড়া আলিমুদ্দীন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিদায় অনুষ্ঠান সম্পন্ন। মানসিক ভারসাম্যহীন লিল মিয়া দীর্ঘ ২০ বছর পর পরিবারের কাছে ফিরে তাক লাগিয়ে দিল। টেকনাফ মডেল থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ২৭৮ কার্টুন বিদেশী সিগারেট পরিত্যক্ত অবস্থায় উদ্ধার উখিয়ার থাইংখালী মহিলা হিফ্জ খানায় এ বছরে ৫ জন হিফজ সম্পন্নকারীদের সংবর্ধনা সম্পন্ন নাইক্ষ্যংছড়ি তুমব্রু সীমান্তে নিহত ডিজিএফআই কর্মকর্তা রেজওয়ান রুশদীর দাফন সম্পন্ন কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জাতীয় দৈনিক ভোরের চেতনা পত্রিকার ২৪তম প্রতিষ্টাবার্ষিকী। প্রেমের ভিডিও ধারনের জেরে দপ্তরি হাফেজ দিদার খুন বলে সন্দেহ-ব্যাপারটা পুলিশ খতিয়ে দেখছে।

দ্বিতীয় দফায়, ৩০ টি বাস করে উখিয়া থেকে ভাসানচরের উদ্দেশ্যে প্রায় ১৪০০ এর অধিক রোহিঙ্গার যাত্রা।

AnonymousFox_bwo / ২৫০ মিনিট
আপডেট সোমবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২০

আইকন নিউজ ডেস্কঃ

দ্বিতীয় দফায় স্বেচ্ছায় আরও ১ হাজার ৪ শ’ জনের অধিক রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু ভাসানচরের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন। সোমবার সকাল ও দুপুরে উখিয়া ডিগ্রি কলেজ মাঠ ট্রানজিট পয়েন্ট থেকে ৩০টি বাসে করে হাতিয়ার ভাসানচরের উদ্দেশে রওনা দিয়েছেন তারা। এছাড়া তাদের নিরাপত্তার জন্য গাড়ি বহরে পুলিশের একটি গাড়ি এবং একটি অ্যাম্বুলেন্স ছিল।

রবিবার বিকেলে ও সোমবার সকালে উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নিয়ে যেতে উখিয়া কলেজ মাঠে অস্থায়ী ট্রানজিট পয়েন্টে রোহিঙ্গাদের রাখা হয়।

৩৪টি ক্যাম্প থেকেই ভাসানচরে স্ব-ইচ্ছায় যেতে ইচ্ছুক রোহিঙ্গারা রোববার বিকেল থেকেই ট্রানজিট পয়েন্টে আসতে শুরু করে। সোমবার সকালেও ৫ শতাধিক রোহিঙ্গা আসেন ভাসানচরে যাওয়ার উদ্দেশে।

চলতি মাসের ৪ ডিসেম্বর প্রথম দফায় ১ হাজার ৬৪২ রোহিঙ্গা ভাসানচরে গেছেন।

টেকনাফ নয়াপাড়া ও উখিয়ার কুতুপালংয়ের নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত ক্যাম্পের মাঝিরা বলেন, গতবারের উল্টো এবারের চিত্র। ওই সময় রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নিতে অনেক বোঝাতে হয়েছে। কিন্তু ২০ দিনের মধ্যে চিত্র পাল্টেছে। এবার রোহিঙ্গারা ভাসানচরে যেতে নিজেরাই আগ্রহী হয়ে তালিকায় নাম দিয়েছেন।

ভাসানচরে ৪ ডিসেম্বর যাদের আত্মীয়স্বজন গেছে, তাদের কাছে সুযোগ-সুবিধার খবর শুনেই অনেকেই যেতে আগ্রহী হয়ে উঠে।
এরই ধারাবাহিকতায় ভাসানচরে যাওয়ার জন্য ১১৩৪ জন রোহিঙ্গা আগ্রহ প্রকাশ করেন।আরো আগ্রহী অনেক রোহিঙ্গা স্ব-ইচ্ছায় শংশ্লিষ্ট ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়ে নাম দিচ্ছে বলে রোহিঙ্গা নেতা হাফেজ জালাল আহমদ জানিয়েছেন।

জানা গেছে, উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থেকে এসব রোহিঙ্গারা ভাসানচরে যাচ্ছে। উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা নেতা মোহাম্মদ নুর জানান,ক্যাম্পে-১, ২, ৩, ৪, ৫, ৮ ডব্লিউ ক্যাম্প থেকে যাচ্ছে অনেক রোহিঙ্গা পরিবার। উখিয়ার কুতুপালং-৪ নম্বর ক্যাম্প থেকে ২৭ পরিবার । কুতুপালং-২ ডব্লিউ থেকে গেছে ১০০ পরিবার।

উখিয়ার লম্বাশিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের (ইস্ট) মাঝি নুরুল আমিন বলেন, ‘আমার ব্লক থেকে কয়েকটি পরিবার ভাসানচরে গেছে তাদের কাউকে জোর করা হয়নি।

আইকন নিউজ/আ র/ ২৮শে ডিসেম্বর-২০২০


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর....