• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫৫ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বিএমএসএফ কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্দ্যোগে ১৫-ই আগষ্ট উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন। নারী চিকিৎসককে গলা কেটে হত্যা, কথিত প্রেমিক কক্সবাজারের রেজা চট্টগ্রামে আটক ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

রিযিক আল্লাহ কর্তৃক প্রদত্ত ও নির্ধারিত। সুতরাং রিযিকের তালাশ না করে রিযিকের মালিকের তালাশ করুণ

AnonymousFox_bwo / ২১২ মিনিট
আপডেট সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১

আইকন নিউজ ডেস্কঃ 

মহান আল্লাহ তাঁর প্রতিটি সৃষ্টজীবের রিযিক প্রত্যেক সৃষ্টের পুর্বেই নির্ধারন করেই পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন। তাই বলে হাত গুঠিয়ে বসে থাকলে তো হবে না, রিজিক যেমন অর্জনে সচেষ্ট হতে হবে, ঠিক তেমনি যিনি রিজিক দেন তাঁকেও তালাশ করতে হবে।

রিযিক এর টেনশান আপনার না। যে রব আপনাকে পাঠিয়েছেন বরং উনিই রিযিক দিবেন। কারণ, আপনি উনার দায়িত্বেই আছেন। যে রব আপনি মায়ের গর্ভে থাকা অবস্হায় কি খাবেন, কেমনে থাকবেন? এই সবের ব্যবস্হা করতে পারেন। সেই রব আপনি বড়ো হবার পর বুঝি আপনাকে পর করে দিবেন ? কখনও-ই না!

বরং আপনি যদি তার একটু বাধ্য থাকেন একটু যদি তার গোলামি করেন তাহলে তিনি আপনাকে এমন দিবেন যা কল্পনাও করতে পারবেন না।
যেমন আল্লাহ তায়ালা বলেন….

‘আপনি রাতকে দিনের মধ্যে প্রবেশ করান এবং দিনকে রাতের মধ্যে প্রবেশ করান। আর মৃত থেকে জীবিতকে বের করেন এবং জীবিত থেকে মৃতকে বের করেন। আর যাকে চান বিনা হিসাবে রিয্ক দান করেন’। সুরা আল ইমরান-আয়াত ২৭। আল্লাহ পাক আরও বলেন, ‘আকাশে রয়েছে তোমাদের রিয্ক ও প্রতিশ্রুত সব কিছু’। সুরা যারিয়াত আয়াত ২২।

রিযিক কাকে কতটুকু দিতে হবে আল্লাহ তায়ালাই ভালো জানেন । তবে আপনি অধিক রিযিক আল্লাহর কাছে চাইতে পারেন ।
“আর আল্লাহ (মানুষের রিযিক) কমান ও বাড়ান এবং তাঁর দিকেই তোমরা ফিরে যাবে।” (সূরা বাকারাহ ২:২৪৫)
আল্লাহ তা‘আলা বলেন, আল্লাহ যার জন্য ইচ্ছা তার জীবন ও উপকরণ বর্ধিত করেন এবং সংকুচিত করেন।” রা‘দ ২৬

“তবে যিনি যতটুকু রিযিকের উপযুক্ত তাকে তিনি ততটুকই রিযিক দিয়ে থাকেন। অন্যথায় জমিনে ফাসাদ সৃষ্টি হবে”। সূরা শুরা ২৭।

অতএব রিযিক দেয়ার মালিক একমাত্র আল্লাহ তা‘আলা। তাই তাঁর কাছে রিযিক চাইতে হবে। রিযিক শুধু ধন-সম্পদের ভিতর সীমাবদ্ধ নয়, বরং জীবন থেকে মরণ পর্যন্ত যা কিছু রয়েছে সবই রিযিকের শামিল।

সেজন্য বলা হয়ে থাকে, রিযিক আল্লাহ কর্তৃক প্রদত্ত ও নির্ধারিত। সুতরাং রিযিকের তালাশ না করে রিযিকের মালিকের তালাশ করুণ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....