• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বিএমএসএফ কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্দ্যোগে ১৫-ই আগষ্ট উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন। নারী চিকিৎসককে গলা কেটে হত্যা, কথিত প্রেমিক কক্সবাজারের রেজা চট্টগ্রামে আটক ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

অমানুষের ভীড়েও আজ একজন ডাঃ টনির মানবিকতার গল্প

AnonymousFox_bwo / ৩৬২ মিনিট
আপডেট সোমবার, ৯ আগস্ট, ২০২১

আইকন আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ

পানির গ্লাসে ছিল এসিড মিশ্রিত পানি।
পরকিয়ায় লিপ্ত স্বামী পিপাসিত স্ত্রীকে পানির বদলে এসিড পান করতে দেয়। ১৮ বছরে বয়সী স্ত্রী পপি রানী দাস তা জানতো না। অসুস্থ পপি রানী পানি ভেবে এসিড পান করে। তারপর যা হবার তাই হলো! তার মুখ, খাদ্যনালী ও পাকস্থলী পুড়ে গলে গিয়েছিল।

দীর্ঘ সাত বছর বাংলাদেশ এসিড সারভাইভার্স ফাউন্ডেশন হসপিটালে চিকিৎসা চলছিল তার। খেতে পারতো না, গিলতে পারতো না কোন খাবার। তাই বাইরে থেকেই একটা নলের সাহায্যে তরল খাবার শরীরে ঢোকানো হতো। জীবন ও মৃত্যুর মাঝামাঝি সময়ে, ২০০৯ সালে স্বামীর হাতে এসিড পান করে দগ্ধ হয়ে অনেক যন্ত্রণা সয়ে অনেকগুলো বছর হাসপাতালে আশাহীন জীবন কাটানোর পর শুরু এক নতুন অধ্যায়।

২০১৬ সালের শুরুতে বাংলাদেশে আগুনে পোড়া রোগীদের চিকিৎসা সেবা দেয়ার জন্য ঢাকা সফর করেছিলেন কানাডার টরন্টোর প্লাস্টিক সার্জন ডা. টনি জং। ডা. টনি পপি রানীকে চিকিৎসা সেবা দেন। তিনি পপিকে আশ্বস্ত করেছিলেন যে, কানাডা ফিরে গিয়ে তিনি পপিকে কানাডাতে নিয়ে গিয়ে উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন। সেই থেকে শুরু।

ডা. টনি কানাডা ফিরে গিয়ে শুরু করেন পপির জন্য তহবিল সংগ্রহের কাজ। দ্বারে দ্বারে গিয়ে এসিডে পপির পুড়ে যাওয়ার গল্প বলেন। কাজ হয়। এক বছরের চেষ্টায় পপি রাণী কানাডার টরন্টোর পিয়ারসন এয়ারপোর্টে নামলেন ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের ১৫ তারিখ।

ইতিমধ্যে ডা. টনি গঠন করলেন পপি ট্রিটমেন্ট ফান্ড। এক মাসের মধ্যেই টরন্টোর কয়েকটি ধনী পরিবারসহ অন্যান্য ডোনারের ডোনেশন সংগ্রহ হয় সাত লক্ষ মার্কিন ডলার। জার্মানির মিউনিখের অ্যানেস্থেসিস্ট ডা. ইনজি হ্যাসেলস্টেইনার ও তার বোনের প্রচেষ্টায় সংগ্রহ হয় আরও সাতাশ হাজার ইউরো।

দীর্ঘ মেয়াদি চিকিৎসার জন্য হাসপাতালের বাইরে পপির থাকার বন্দোবস্তে এগিয়ে আসেন কানাডার বাংলাদেশ কমিউনিটির মহৎপ্রাণ মানুষেরা। সেই সাথে টরন্টো জেনারেল হসপিটালের মেডিকেল টিমের স্পশালিস্ট ডাক্তার ও অ্যানেস্থেসিস্ট সবাই তাদের ফি পুরোটাই ফ্রি করে দেন। পপির অপারেশনের জন্য টরন্টো জেনারেল হাসাপাতালের অপারেশন থিয়েটার অফ টাইমের জন্য ব্যবহার করারও অনুমতি দেয়া হয়, যাতে কানাডার অন্যান্য নিয়মিত রোগীদের অপারেশন সেবার ব্যাঘাত না ঘটে। সেইসাথে অপারেশন চার্জও সম্পূর্ণ ফ্রি করে দেয়া হয় পপির জন্য। ডা, জিলবার্ট ও ডা. গোল্ডস্টেইনের তত্ত্বাবধানে পপির বাম বাহুর চামড়া থেকে নতুন কোষ উৎপন্ন করে নতুন করে খাদ্যনালী, পাকস্থলী, শ্বাসনালী পুন:নির্মাণ করা হয়। যুগান্তকারী সাফল্য আসে। এখন পপি স্বাভাবিকভাবে খাবার গিলে খেতে পারে। শক্ত খাবারের হজম প্রকৃয়া স্বাভাবিক হতে আরও কিছুদিন চিকিৎসা নিতে হবে।

কৃতজ্ঞতা- Dr. Soheli S Ripa, Montreal.


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....