• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৩৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বিএমএসএফ কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্দ্যোগে ১৫-ই আগষ্ট উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন। নারী চিকিৎসককে গলা কেটে হত্যা, কথিত প্রেমিক কক্সবাজারের রেজা চট্টগ্রামে আটক ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ‘অস্থিরতা’ সৃষ্টির চেষ্টায় ‘মিয়ানমার’ থেকে আসছে অস্ত্র

AnonymousFox_bwo / ২৪৪ মিনিট
আপডেট মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১

আইকন নিউজ ডেস্কঃ 

কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফের রোহিঙ্গা শিবিরে অস্ত্র নিয়ে এখন আর কোনো রাখঢাক নেই। একাধিক সন্ত্রাসী গ্রুপ সেখানে সক্রিয়, তাদের সবার হাতেই আছে আধুনিক অস্ত্র। সেই অস্ত্র তারা ব্যবহার করছে চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী আর প্রভাব বিস্তারের কাজে। রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এই অবৈধ অস্ত্র আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে নতুন করে উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে উখিয়ার লম্বাশিয়া আশ্রয়শিবিরের ডি ব্লকের আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস (এআরএসপিএইচ) সংগঠনের কার্যালয়ে শীর্ষ রোহিঙ্গা নেতা মুহিবুল্লাহ হত্যা এবং গত ২২ অক্টোবর রাতে বালুখালী ক্যাম্প-১৮-এর এইচ-৫২ ব্লকে দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল ইসলামিয়াহ মাদ্রাসায় হামলা চালিয়ে ছয় রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনা একই সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপের পরিকল্পিত মিশন ছিল।

পুলিশের একটি সূত্র বলছে, রোহিঙ্গা শীর্ষ নেতা মুহিবুল্লাহর হত্যাকাণ্ডে যে পাঁচ অস্ত্রধারী ছিলেন, তাঁরা সবাই ভারী আগ্নেয়াস্ত্র বহন ও ব্যবহার করেন। সবশেষ শুক্রবার ভোররাতে যে ছয়জনকে খুন করা হয়, সেখানে বিদেশি অস্ত্রের পাশাপাশি দেশি আগ্নেয়াস্ত্রও ব্যবহার করা হয়। আর এ পর্যন্ত যত অস্ত্র ধরা পড়েছে তার বেশিরভাগই বিদেশে তৈরী।

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এত অস্ত্র কোত্থেকে এলো?

কক্সবাজার জেলা পুলিশের তথ্য বলছে, ২০১৯ সালে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে টেকনাফ ও উখিয়া থানায় অস্ত্র মামলা হয়েছিল ১৭টি ৷ ২০২০ সালে বেড়ে দাঁড়ায় ২৭টি। আর চলতি বছরের ৯ মাসে ১৫টি অস্ত্র মামলা হয়েছে। ওই সময়ের মধ্যে রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে ১৪টি দেশীয় পিস্তল, ৪৪টি এলজি, ৩টি বিদেশি পিস্তল, ৩০টি একনলা বন্দুক, ২৫টি দেশি বন্দুক, ৪টি পাইপগানসহ প্রচুর পরিমাণ ধারালো অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। সব মিলিয়ে এই সময়ের মধ্যে ১২৩টি অস্ত্র উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সীমান্ত ও ক্যাম্প নিয়ে কাজ করেন এক সরকারি কর্মকর্তা বলেন, ‘মিয়ানমার থেকে মাদক চালানের সঙ্গে অস্ত্র আসছে এতে কোনও সন্দেহ নেই। মাদকের মূল হোতারা মাদক পাচারকালে ব্যবহারের জন্য তাদের বহনকারীদের হাতে তুলে দিচ্ছে অস্ত্রশস্ত্র। আবার অনেকে মাদক বহনকারী হিসেবে ব্যবহার করছে রোহিঙ্গাদের। সেই সুবাদে ক্যাম্পে তারা যেকোনও কর্মকাণ্ডে অবৈধ অস্ত্র ব্যবহার করছে। এতে প্রাণহানির ঘটনা ঘটছে।’

টেকনাফে অস্ত্রসহ ২ রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী আটক।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সম্প্রতি আইনশৃঙ্খলাবিষয়ক এক সভায় বলেছেন, ক্যাম্পগুলোয় ‘অস্থিরতা’ সৃষ্টির চেষ্টায় ‘মিয়ানমার’ থেকে অস্ত্র আসছে। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বলছে, ক্যাম্পসংলগ্ন পাহাড়ে নিজেরাই অস্ত্র তৈরি করছেন রোহিঙ্গারা। অস্ত্র তৈরির কাজে লাগাচ্ছেন মহেশখালীর অস্ত্রের কারিগরদের।

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একটি সূত্র বলছে, মহেশখালীতে জলদস্যুতা ছেড়ে আত্মসমর্পণ করা ৯৬ আসামি জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। তাঁদের মধ্যে কেউ কেউ পুরোনো ব্যবসায় ফিরে গেছেন। তাঁদের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা।

মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবদুল হাই নিজেও একই কথা বলেছেন। তিনি বলেন, আগস্ট মাসে পাহাড়ে কারখানা থেকে পাঁচটি নতুন তৈরি অস্ত্র ও সরঞ্জামসহ মাহমুদুল করিম (৩০) নামের এক কারিগরকে গ্রেপ্তার করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, বেশ কিছুদিন ধরে তিনি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্র সরবরাহ করে আসছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....