• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৯:২৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
তথাকথিত কোটিপতি তকমাদারীর আয়ের উৎস ও সামাজিক অবস্থান এবং মাদক প্রতিরোধে প্রশাসনিক দুর্বলতার ছাপ! মানবিকতার জঘন্যতম দৃষ্টান্ত স্থাপনে কক্সবাজারে আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্টার চেষ্টায় রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হাসপাতাল নয়, যেনো এক একটি রোহিঙ্গা প্রজনন কেন্দ্র। সমুদ্রের পানির উচ্চতা ঝুঁকিতে ‘বিশ্ব’ ও ‘বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল’। মধ্যপ্রাচ্যের ‘ক্যান্সার খ্যাত’ ইসরাইল রাষ্ট্রের উভ্যূদয় ও রোহিঙ্গা জনগোষ্টির ‘স্বাধীন রাষ্ট্র’ স্বপ্ন ও বাস্তবতা রোহিঙ্গা সমাস্যা’ যা বাংলাদেশের গোঁদের উপর বিষফোঁড়াঃ একটি পর্যালোচনা। প্রেক্ষাপটঃ তৈল বিদ্যার তেলেসমাতি–যার প্রভাবে বর্তমান পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে ত্রাহি ত্রাহি ভাব! বাজার নিয়ন্ত্রণ, মিথ্যার বেসাতি আর গোল খাওয়া পাবলিক ইসলামিক ‘রোজা’ ও বৈজ্ঞানিক ‘অটোফেজি’ শব্দের অর্থ, সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য। উখিয়া ভুঁইয়া ফাউন্ডেশন কর্তৃক মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা, ঈদ পুর্ণমিলন ও বীচ ফুটবল খেলা সম্পন্ন।

আমি একজন বিয়ের ট্রেন ফেল করা বয়স্ক কুমারী মেয়ে

AnonymousFox_bwo / ২২১ মিনিট
আপডেট শনিবার, ৩০ অক্টোবর, ২০২১

আইকন নিউজ ডেস্কঃ 

বাবার গৃহে আমি ছিলাম খুবই আদুরে মেয়ে । আমার কোনো চাওয়াই অপূর্ণ থাকত না । পাঁচ ভাইয়ের একটি মাত্র বোন বলে আমার স্নেহ – ভালোবাসা ও আদর – যত্নেও কোনো ত্রুটি হতো না।

❑ সবাই আমার প্রতি বিশেষভাবে খেয়াল রাখত । আমার সকল আবদার পরিবারের সকলে বিনা বাক্য ব্যয়ে মেনে নিত । আর আমার চেতনার পুরােটা জুড়েই ছিল পড়ালেখা । লেখাপড়া ছাড়া অন্য কোনো দিকে মনোযোগ দিতে আমি মোটেও রাজি হতাম না । আর এতে আমার সাফল্যও ছিল বেশ ঈর্ষণীয় । তাই সকলের কৌতূহলী দৃষ্টি আমাকে অনুক্ষণ ঘিরে রাখত এবং সবাই আমাকে একটু কাছে পেতে উদগ্রীব থাকত । আমার সময়গুলো বরাবরের মতো বেশ ভালোই কাটছিল । সময়ের পরিক্রমায় আমি মাধ্যমিক স্তরে উত্তীর্ণ হলাম ।

❑ একদিন মায়ের দেওয়া একটি সংবাদে প্রথম বারের মতো কাঁপুনি ধরল আমার হৃদয়ে । তিনি বললেন , অমুক তোমাকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছে । তখন আমি কিছুটা আশ্চর্য ও অহংকার – মাখা স্বরে বললাম , পরিবারের লোকেরা কি আমাকে নিয়ে তামাশা করছে !? এই যে প্রস্তাব আসা শুরু হলো — এর পর থেকে এত ঘন ঘন প্রস্তাব আসতে লাগল যে , আমার অন্য বান্ধবীদের সবার মিলেও বোধহয় এত প্রস্তাব আসত না । একবার তো এক বান্ধবীকে গোপনে বলেই ফেললাম , মনে হচ্ছে আমাদের শহরের সব যুবকই আমার কাছে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে আসবে , কেউ আর বাকি থাকবে না ।

❑ আব্দুল্লাহ নামের অসাধারণ এক যুবক বিয়ের প্রস্তাব দেয় , যে জ্ঞানে – গুণে এতটা সমৃদ্ধ ছিল যে , আর দশজন পুরুষ মিলেও তার কাছে ঘেঁষতে পারবে না । তবুও আমি তার প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলাম । কারণ , আমি সুন্দরী , আমি মেধাবী — আমার একটা অবস্থান আছে । পড়ালেখার পাট চুকিয়ে যখন কর্মজীবনে পা রাখলাম , সম্বন্ধ আসর ধারা । আরও বেড়ে গেল। তবে এতে কিছুটা পরিবর্তন দেখা গেল । যারা প্রস্তাব নিয়ে আসছে তাদের বয়স খানিকটা বেশি — ত্রিশের আশেপাশে ! যদিও আমার অন্তরে বিপদঘণ্টা বেজেই চলছিল , কিন্তু আজকের আগে কখনােই তা আমি শুনতে পাইনি ।

❑ সময় তার গতিতে বয়ে চলছে । এরই মধ্যে এমন একটি প্রস্তাব এল , যা আমাকে ভীষণভাবে নাড়া দেয় । জানো , সেটা কী ? এমন এক লােক প্রস্তাব নিয়ে আসে , যে তার স্ত্রীকে তালাক দিয়েছে এবং তার একটি সন্তান আছে । এরূপ প্রস্তাব পেয়ে প্রথমে বড় একটা ধাক্কা খেলাম । পরক্ষণেই বললাম , বেচারি ! আমার অবস্থা জানে না , আমি কে ? তার জন্য আমার এক ধরনের করুণা হলাে ।

❑ দিন যায় , সপ্তাহ গড়ায় , মাস ফুরায় , এদিকে আমার বয়সও বাড়তে থাকে । কিন্তু সেদিকে আমার কোনাে খেয়াল নেই । আমি আমার কাজে নিমগ্ন । বয়সের সাথে পাল্লা দিয়ে একদিকে আমার দৈহিক লাবণ্য ও কমনীয়তা কমতে থাকে ; অপরদিকে ক্রমশ বড় হতে থাকে আমার কাজের চাপ ও দায়িত্বের পরিধি , চিন্তা – ভাবনায়ও আসতে থাকে বড় ধরনের পরিবর্তন । আমি সকলের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিতে থাকি আর আব্দুল্লাহর মতাে এক তরুণের প্রস্তাব পাওয়ার আশায় অধীর আগ্রহে প্রতীক্ষার প্রহর গুনি ।

❑ কিন্তু আমার আশায় গুড়ে বালি ! প্রবাদ আছে , পাখি উড়ে গেছে । তার খাবার নিয়ে । আব্দুল্লাহ এখন চার সন্তানের বাবা আর আমি বেচারা এখনও কুমারী বুড়ি আমি আমি গেল আমার বয়স এখন ত্রিশ ছুঁইছুঁই । আশঙ্কাগুলো ঘনীভূত হয়ে আসছে ক্রমশ ধীরে ধীরে কঠিন হয়ে উঠছে জীবন ! এই তো আমার বান্ধবী ফাতিমা , সে এখন চার সন্তানের মা । অপর বান্ধবীর কোলজুড়ে চাদের মতো ফুটফুটে দুটি মেয়ে । আরেক বান্ধবী স্বামীকে নিয়ে কী যে সুখে দিন । কাটাচ্ছে ! অথচ , তাদের আর্থিক অবস্থা নিতান্তই সাধারণ । আর আমি ….!

❑ আমি নির্ঝঞ্ঝাট আরামে দিনাতিপাত করছি । আসলে আমি আত্মপ্রবঞ্চনায় ভুগছি ; নিজের সাথে মিথ্যে বলছি । সত্যিই কি আমি সুখে আছি ? বিশাল জনতার ভিড়ে এক অদ্ভুত নির্জনতা আমায় ছেকে ধরেছে । আমার বয়সের সকল মেয়েই তো একাধিক সন্তানের মা — তারা আদরের সন্তানদের সাথে হাসাহাসি করছে , মধুর স্বরে তাদের সম্বোধন করছে । এদিকে আমার চারপাশে বিচিত্র সব ফিতনা ও পরীক্ষা এসে ভিড় জমাচ্ছে , আমাকে গ্রাস করে ফেলার উপক্রম করছে । কিন্তু আল্লাহ তাআলা আমাকে অশ্লীল ও নির্লজ্জ কাজ থেকে হিফাজত করেছেন । হয়তো এটি আমার মা বাবার দুআ ও সু’নজরের বরকতে হয়েছে ।

একদিন আমি অফিস থেকে ফিরলাম । এরই মধ্যে আমার তীক্ষ মেধা ও কঠিন অধ্যবসায় কর্মক্ষেত্রে আমাকে পৌঁছে দিয়েছে সাফল্যের সর্বোচ্চ স্তরে । কিন্তু এই সফলতা আমার কাছে অর্থহীন মনে হয় । আমি কাজ থেকে বাসায় ফিরে দেখি , মা আমার উদ্দেশে একটি চিরকুট লিখে আমার বালিশের ওপর রেখে দিয়েছেন । তাতে লেখা , “ মেয়ে আমার , অমুক তোমাকে বিয়ের প্রস্তাব পাঠিয়েছে । সে ভালো চাকুরি করে আর তার বয়সও কম । আশা করি , তুমি সায় দেবে যদিও তার অন্য এক স্ত্রী ও ছয়জন সন্তান রয়েছে । দিন কিন্তু চলে যাচ্ছে । বিষয়টি নিয়ে চিন্তা করে আমাকে জানাও ।
❑ আমি চিরকুটটা গভীর মনোযোগে পড়লাম এবং রাগে ফেটে পড়লাম । আমি মাথার চুলের দিকে তাকালাম । মাঝে মাঝে সাদা হয়ে ওঠা চুলগুলাে লুকাতে এরই মধ্যে আমি কলপ লাগাতে শুরু করেছি । ভাবতে ভাবতে কান্নায় ভেঙে পড়লাম আমি । শেষ পর্যন্ত এমন একজন লােকও আমাকে প্রস্তাব দিল !? আমার ধৈর্যের বাধ ভেঙে গেল । রেগেমেগে সেই সন্ধ্যায় আমি বাবার কাছে গেলাম । তাকে বললাম , কীভাবে আপনারা এমন একজন মানুষের প্রস্তাব গ্রহণ করলেন যার ছয়টা সন্তান আছে ? আমার পিতার উত্তরটি আমার অন্তরে ধারালো ছুরির মতাে বিদ্ধ হলাো ।

❑ কয়েক মাসে আমাদের কাছে এমন বিবাহিতরা ছাড়া, অন্য কেউ প্রস্তাব নিয়ে আসেনি । আমার ভয় হয় কিছুদিন পর হয়তো এমন সময় আসবে , যখন প্রস্তাব আসাই বন্ধ হয়ে যাবে । মেয়ে আমার , মুরব্বিরা একটা কথা বলতেন , মেয়েরা গাোলাপের মতাে ছিড়তে দেরি করলে এর পাপড়িগুলাে ক্রমশ শুকিয়ে আসে । আমার মনে হয় , তুমিও এই পর্যায়ে পৌছে গেছ।

মেয়ে , তোমার কাছে তো শত শত প্রস্তাব এসেছিল , তুমি একটা একটা করে সবগুলোকেই প্রত্যাখ্যান করেছ । ও বেশি লম্বা , সে বেশি খাটো , ওর এই দোষ , অমুকের এই সমস্যা ! আর এখন … ? এমন সময় এসেছে , তুমি আর কাউকেই পাচ্ছ না … !

পরের দিন মাগরিবের পর আমি মা – বাবার সাথে কিছুক্ষণ বসলাম । লক্ষ করলাম , তারা আমার দিকে স্নেহ ও ভালোবাসার দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছেন । আমি একজন বয়স্ক কুমারী মেয়ে — যে বিয়ের ট্রেন ফেল করেছে । অথচ , ট্রেন তার চোখের সামনে দিয়েই তার সমবয়স্ক বান্ধবীদের নিয়ে চলে গেছে । ভাবতে ভাবতে আমি কেঁদে ফেললাম । আব্বুকে বললাম , ইস ! আপনি যদি বিষয়টি সামাল দিতেন ! তিনি বললেন , কীভাবে ? আমি বললাম , আপনি যদি আমার হাত ধরে আপনার পছন্দের পাত্রের হাতে আমাকে তুলে দিতেন ! আপনি কি আব্দুল্লাহকে পছন্দ করতেন না , তার প্রশংসা কি আপনি করতেন না ? আপনি কি আপনার খালাতো ভাইকে পছন্দ করতেন । , তার প্রশংসা করতেন না ?

❑ আব্বু , আপনি যদি তখন এমনটি করতেন , আমি এখন আপনাকে তিরস্কার করতাম না । হায় , আপনি যদি এর জন্য আমাকে প্রহার করতেন !! বলতে বলতে আমি কান্নায় ভেঙে পড়লাম । এখন আর কোনাে যুবকই আমার কাছে প্রস্তাব নিয়ে আসে না । না লম্বা , না খাটো ; না ধনী , না দরিদ্র — কেউ আসে না । কল্পনার কোনাে রাজপুত্র কিংবা স্বপ্নের কোনাে নায়ক । কারও দেখা মিলে না । অর্থহীন প্রতীক্ষার বিদঘুটে আফসোসগুলো ঘনীভূত হচ্ছে ক্রমশ । হৃদয়জুড়ে অনুতাপের হাহাকার । জীবনের এই তিক্ত অভিজ্ঞতাগুলাে তুলে ধরলাম আমার মতাে বোনদের কল্যাণের জন্য । আমি চাই না , আমার মতাে করুণ পরিণতি আর কোনাে বোনের হােক …।

📷 সূত্র : ইয়া আবি ! জাওয়্যিজনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর....