• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৮:৪০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
তথাকথিত কোটিপতি তকমাদারীর আয়ের উৎস ও সামাজিক অবস্থান এবং মাদক প্রতিরোধে প্রশাসনিক দুর্বলতার ছাপ! মানবিকতার জঘন্যতম দৃষ্টান্ত স্থাপনে কক্সবাজারে আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্টার চেষ্টায় রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হাসপাতাল নয়, যেনো এক একটি রোহিঙ্গা প্রজনন কেন্দ্র। সমুদ্রের পানির উচ্চতা ঝুঁকিতে ‘বিশ্ব’ ও ‘বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল’। মধ্যপ্রাচ্যের ‘ক্যান্সার খ্যাত’ ইসরাইল রাষ্ট্রের উভ্যূদয় ও রোহিঙ্গা জনগোষ্টির ‘স্বাধীন রাষ্ট্র’ স্বপ্ন ও বাস্তবতা রোহিঙ্গা সমাস্যা’ যা বাংলাদেশের গোঁদের উপর বিষফোঁড়াঃ একটি পর্যালোচনা। প্রেক্ষাপটঃ তৈল বিদ্যার তেলেসমাতি–যার প্রভাবে বর্তমান পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে ত্রাহি ত্রাহি ভাব! বাজার নিয়ন্ত্রণ, মিথ্যার বেসাতি আর গোল খাওয়া পাবলিক ইসলামিক ‘রোজা’ ও বৈজ্ঞানিক ‘অটোফেজি’ শব্দের অর্থ, সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য। উখিয়া ভুঁইয়া ফাউন্ডেশন কর্তৃক মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা, ঈদ পুর্ণমিলন ও বীচ ফুটবল খেলা সম্পন্ন।

বালুখালী থেকে ৪,২০০পিস ইয়াবাসহ একজন গ্রেফতার, ২ জন পালালেও তিনজনের নামে থানায় এজাহার

AnonymousFox_bwo / ১০৭ মিনিট
আপডেট বুধবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২২

আইকন নিউজ ডেস্কঃ

গত ১৬-জানুয়ারি -২০২২, রাত ৮.৩০ টায়, উখিয়া থানাধীন ০৫ নং পালংখালী ইউপিস্থ, ০১ নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত উখিয়া ঘাট কাস্টমস এর ডাব্লিউ এফপি অফিসের সামনে কক্সবাজার টেকনাফ মহাসড়কের পশ্চিম পাশ্বে পাকা রাস্তার উপর, বালুখালী পালংখালী উখিয়া কক্সবাজার থেকে ৪,২০০ ( চার হাজার দুইশত) পিছ ইয়াবা, (যার আনুমানিক মুল্য ১২,৬০,০০০/- বার লক্ষ ষাট হাজার)সহ ০১। জাহিদ আলম, পিতাঃ মৃত শমসু, মাতা ছুরা খাতুন, (সাং- এফসিএন ১৩০১০২, ব্লক-দি/১১, হিল-৪, ক্যাম্প-৭, সাব মসঝু আবু আহমদ) কে গ্রেফতার করা হয়। অপর দুই ব্যক্তি পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পলায়ন করতে সক্ষম হয়, তারা হচ্ছে যথাক্রমে আসামী ০২। মোহাম্মদ আলমগীর (৩০), পিতাঃ মৃত নুর আহমদ, মাতাঃ হালিমা খাতুন, (স্থায়ী ঠিকানাঃ গ্রাম বালুখালী বানুর বাপের খিল, ০২ নং ওয়ার্ড, ০৫ নং পালংখালী ইউপি, উপজেলা উখিয়া, জেলা কক্সবাজার) ও আসামী ০৩। জিয়াউর রহমান (২২), পিতাঃ অজ্ঞাত, সাং- ব্লক নি/০১, ক্তাম্প-৭, সাব মাঝি আয়ুব, হেড মসঝি আঃ গনি, থানাঃ উখিয়া কক্সবাজার।

উখিয়া থানা জিডি নং ৮২৪, তারিখঃ ১৬/০১/২০২২ ইং মুলে রোহিঙ্গা ক্যাম্প-৬ (দিবা) ডিউটি করাকালে, ১৬/০১/২২ ইংরেজি তারিখে ১৬.৪০ ঘটিকার সময় কুতুপালং বাজারে অবস্থানকালে গোপন সংবাদের মাধ্যমে জানতে পারেন, উখিয়া থানাধীন উপরোক্ত স্থানে কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী ইয়াবা ট্যাবলেট ক্রয় বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে একত্রিত হয়েছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে বিষয়টি সাথে সাথে উর্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে ১৬.৫০ ঘটিকায় বর্ণিত ঘটনাস্থলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তিনজন লোক পালানোর চেষ্টাকালে সঙ্গীয় অফিসার ও ফোর্সের সহযোগিতায় আসামী জাহিদ আলমকে হাতে নাতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার করা হয়। অপরাপর আসামী মোঃ আলমগীর (৩০) ও জিয়াউর রহমান পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। অতএব, ধৃত আসামী ১। জাহিদ আলম (১৯) এবং পলাতক আসামী ২। মোঃ আলমগীর (৩০), ০৩। জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে ২০১৮ সালের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনের ৩৬(১) এর ১০(গ)/৪১ ধারায় নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর....