• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৮:২৬ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত উখিয়া স্পেশালাইজড হসপিটাল এ জনপদের চাহিদা, আশা-আকাঙ্ক্ষা পুরণে সক্ষম? নাকি শুধুই গতানুগতিক! ফেসবুকে পরিচয় ও প্রেম-অতপরঃ এক কলেজ শিক্ষিকাকে কলেজ ছাত্রের বিয়ে!

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের আগুন, পুড়েছে ৩ শতাধিক ঘর-অগ্নিদগ্ধে এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু

AnonymousFox_bwo / ১৫৬ মিনিট
আপডেট বুধবার, ৯ মার্চ, ২০২২

আইকন নিউজ ডেস্কঃ

কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের লাগা আগুনে দগ্ধ হয়ে এক শিশু মারা গেছে। আগুনে পুড়ে গেছে আশ্রয়কেন্দ্রের প্রায় ৩শতাধিক ঘর। মঙ্গলবার (৮ মার্চ) বিকাল ৪টার দিকে উখিয়ার কুতুপালং ৫ নম্বর ক্যাম্পের বি ব্লকে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কার্যালয়ের অতিরিক্ত কমিশনার শামসুদ্দৌজা নয়ন জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস, এপিবিএন ও পুলিশসহ স্থানীয়রা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় এক রোহিঙ্গা শিশু দগ্ধ হয়ে মারা গেছে। তবে তাৎক্ষণিকভাবে মারা যাওয়া শিশুর পরিচয় নিশ্চিত করা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনায় ৩শতেরও বেশী ঘর আগুনে পুড়ে গেছে।

কক্সবাজার ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ জানান, আগুন লাগার পর প্রথমে উখিয়া ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট কাজ শুরু করে। পরে কক্সবাজার থেকেও আরও দুটি ইউনিটকে রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাঠানো হয়। দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।ক্ষতিগ্রস্ত উখিয়ার ৫ নম্বর ক্যাম্পের বাসিন্দা রফিক বলেন, আগুনে পুড়ে সব নিঃস্ব হয়ে গেছি। এখানে সাড়ে ৪০০ ঘরবাড়ি আগুনে পুড়ে গেছে। সেখানে বেশ কিছু দোকানপাটও ছিল। আগুন লাগার ঘটনায় চার বছরের এক শিশু মারা গেছে।

অত্র ক্যাম্পের বাসিন্দা শামসু ও লিয়াকত জানান, “আরার ক্যাম্পত এক্কান ঘরত, অইন ধইজ্জে, আরার ঘর দুয়ার বিয়াক্কীন জলি গিয়েগই, বইয়ার বেশি অইবার লাই বিয়েজ্ঞিন জলি গিয়ই’ (তাদের ক্যাম্পে একটি ঝুপড়ি ঘরে অসাবধানতার কারনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। আগুনে তাদের সবকিছু পুড়ে যায়, বাতাস বেশি থাকায় দ্রুত আগুন ছড়িয়ে পড়ে)।
ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। তবে আগুনে পুড়ে গেছে কয়েকশ’ ঘরবাড়িসহ দোকানপাট। আগুন লাগার ঘটনাটি নিছক দুর্ঘটনা নাকি পরিকল্পিত ঘটনা সেটি খতিয়ে দেখা দরকার।

গত ৯ জানুয়ারি উখিয়ার শফিউল্লাহ কাটা নামের একটি ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সেই আগুনে প্রায় ৬০০ ঘর পুড়ে যাওয়ায় তিন হাজারের বেশি মানুষ আশ্রয় হারিয়েছেন। এর আগে, ২ জানুয়ারি উখিয়ার বালুখালী ২০ নম্বর ক্যাম্পের আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা (আইওএম) পরিচালিত করোনা হাসপাতালের জেনারেটর থেকেও অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। সেই আগুনে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তবে গত বছরের ২২ মার্চ উখিয়ার বালুখালীতে লাগা আগুনে পুড়ে মারা গেছেন ১৫ রোহিঙ্গা। তখন ১০ হাজারের মতো ঘর পুড়ে ছাই হয়েছে। তবে স্থানীয়দের অভিমত বার বার অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা, নাকি পরিকল্পিত নাশকতা? তা নিয়েও নানা প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে।

এ প্রসংগে, রাজাপালং ৯ নং ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি জনপ্রতিনিধি ইঞ্জিনিয়ার হেলাল উদ্দিন্ন বলেন, ‘রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ঘন ঘন অগ্নিকান্ডের ঘটনা খুবই রহস্যজনক যা আমাদেরকে ভীষণভাবে ভাবিয়ে তুলছে। এটি নিছক দূর্ঘটনা নয়, পরিকল্পিত অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা বলে মনে হচ্ছে’। অত্র প্রতিবেদকের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করা হয়েছে কিনা এক প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, ‘যেহেতু রোহিঙ্গা অধ্যুষিত মাছকারীয়া, মধুরছড়া এলাকায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে, প্রশাসনের আহবান ছাড়া রোহিঙ্গা এলাকায় যাওয়া সমীচীন বলে মনে না হওয়ায়, উক্ত অগ্নিকান্ড ঘটার স্থান পরিদর্শনে যাবার সুযোগ হয়নি। প্রশাসন নিশ্চয়ই আমাকে স্থানীয় প্রতিনিধি হিসেবে আহবান করবেন, আশা করছি। প্রশাসনের ডাকে অবশ্যই সাড়া দেব।’

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ঘন ঘন অগ্নিসংযোগের ব্যাপারে উপজেলা প্রেসক্লাবের সম্মানিত সভাপতি,মুসলেহ উদ্দিন বলেন, ‘ অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ঘন ঘন অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা শুধু নিছক দূর্ঘটনা নয়, এটার পেছনে গভীর ষড়যন্ত্র কাজ করছে বলে মনে হচ্ছে। অনেকেই বলেছেন, নিত্য নতুন শেড, ঘরবাড়ি পাবার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবার জন্য, রোহিঙ্গা ও এনজিও/আই এন জিও দের যোগসাজসে অত্র অগ্নিকান্ড পরিকল্পিত। অবশ্য, এ ব্যাপারে রাষ্ট্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাকে আরও বেশি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিয়ে ঘটনার অন্তরালের ঘটনা উদঘাটন করতে হবে। আমি মনেকরি, গণমাধ্যমকর্মী হিসেবে আমাদেরকেও আরও প্র‍্যাক্টিক্যাল হতে হবে, তথ্য, উপাত্ত সংগ্রহ করে সঠিক ঘটনা তুলে ধরতে হবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....