• বৃহস্পতিবার, ০৭ জুলাই ২০২২, ১১:২০ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
উখিয়ায় বিশেষায়িত হাসপাতাল উদ্বোধন করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী উখিয়ায় অবৈধ টমটম, সিএনজি ও অটোরিকশার বিরুদ্ধে পুলিশের অভিযান শুরু উখিয়া খাদ্য গুদাম গত বুরো মৌসুমে ১ কেজি ধান সংগ্রহ করতে পারেনি ক্ষুধার যন্ত্রণায় শিশুর কান্নায় অতীষ্ট হয়ে গলা টিপে হত্যা করলেন মা! রাঙ্গুনীয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের ৪ সন্তান‌ই বুয়েট শিক্ষার্থী! জামিন নিতে পিস্তল নিয়েই এজলাসে আসামি আজ উখিয়ায় উখিয়া বিশেষায়িত হাসপাতাল এর শুভ উদ্বোধন পুলিশের দাবি, প্রতি মাসে ১২০ কোটি টাকার ইয়াবা আনেন ধৃত রোহিঙ্গা শফিউল্লাহ মক্কা মদিনার মতো গোপালগঞ্জ আসলে শান্তি অনুভূব করি-সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালেদ। ইউরোপিয়ান জার্নালিস্ট নেটওয়ার্কের সভাপতি জামান, সাধারণ সম্পাদক অনুরূপ

থেমে নেই সীমান্তে পিতা-পুত্রের রমরমা ইয়াবা বানিজ্য!

AnonymousFox_bwo / ১০০ মিনিট
আপডেট সোমবার, ৪ এপ্রিল, ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক :

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার বালুখালী সীমান্ত ও রোহিঙ্গা অধ্যূষিত এলাকার ইয়াবা চোরাচালানের শীর্ষ গডফাদার মৃত অালী হোসেনর পুত্র অাবদুল গফুর ও তারই পুত্র কামরুল ইসলাম প্রকাশ গুটি কামরুল। গফুর ইয়াবা সহ রাজধানীতে একাধিক বার গোয়েন্দা পুলিশের হাতে অাটক হওয়ার নজির রয়েছে।

প্রশাসনের টার্গেট আড়ালে থাকা ইয়াবা গডফাদার। সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশে তৈরি হয়েছে একাধিকবার মাদক কারবারিদের তালিকা। যার মধ্যে যুক্ত হয়েছে প্রায় ১২ শতাধিক ইয়াবা কারবারি।

তথ্য মতে, ঢাকায় গোয়েন্দ পুলিশের হাতে বিপুল পরিমান ইয়াবা নিয়ে অাটক হওয়া বালুখালীর শীর্ষ ইয়াবা কারবারি আবদুর গফুর দীর্ঘদিন কারাবন্দী থাকার পর এলাকায় ফিরে ফের মরণ নেশা ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। আগের গফুরের এজেন্ট রোহিঙ্গা হলেও এ দফায় ইয়াবার এজেন্ট হিসাবে কাজ করে যাচ্ছে তার পুত্র কামরুল ইসলাম।

সম্প্রতি টানা অভিযান ও ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত নিচু ও মাঝারি পর্যায়ের কিছু মাদক ব্যবসায়ী আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ক্রসফায়ারে নিহত হয়েছেন। তবে এদের মধ্যে হ্নীলার লেদা এলাকার নুর মোহাম্মাদ, উখিয়ার নজরুল সিকদার, টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা কারবারি সাইফুল আজিম ও জাকুর মৃত্যুকে বড় ধরনের অর্জন হিসেবে দেখছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। ১৮ সালে বন্দুক যোদ্ধে নিহত নুর মোহাম্মাদ এর শীর্ষ বালুখালী অাবদুল গফুর এখন ইয়াবা ব্যবসায় চালিয়ে যাচ্ছে। ১৮ সালে ২০ হাজার ইয়াবা সহ চট্রগামে পুলিশের হাতে গফুরের মালিকানাধীন ট্রাক অাটক করেছিল পুলিশ। তিনি মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে মামলা থেকে রক্ষা পেয়েছিল।

এ বারের অনুসন্ধানে, গফুর ও তার ছেলে গুটি কামরুল মাদক পাচার কৌশল ভিন্ন ভাবে দেশের বিভিন্ন শহরে পৌঁছে দিচ্ছে। সীমান্ত ও রোহিঙ্গা শিবির কেন্দ্রীক হওয়ায় রোহিঙ্গাদের মাধ্যমে নিরবে পাচার করে যাচ্ছে ইয়াবা।

আমাদের অনুসন্ধান আরো নিশ্চিত হয় যে, মায়ানমার থেকে এদেশে প্রথমে ইয়াবার চালান আনা শুরু করেন বালুখালীর অাবদুল গফুর ও টেকনাফ উপজেলা হ্নীলার নুর মোহাম্মদ । পরে এই ব্যবসা সম্প্রসারিত হয় পুরো টেকনাফ উখিয়ায় সহ দেশের গ্রাম থেকে শহরে পৌঁছে যায়। তাদের ছত্রছায়ায় গড়ে উঠে রোহিঙ্গা শিবির ভিত্তিক কয়েকটি মাদকের বৃহত্তর নেটওয়ার্ক।

কাজেই বালুখালীর শীর্ষ ইয়াবা কারবারি আবদুর গফুর ও তার ছেলে গুটি কামরুলকে আটকে বেরিয়ে আসবে ইয়াবা পাচারের আরো নিত্য নতুন কৌশল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর....