• বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
তথাকথিত কোটিপতি তকমাদারীর আয়ের উৎস ও সামাজিক অবস্থান এবং মাদক প্রতিরোধে প্রশাসনিক দুর্বলতার ছাপ! মানবিকতার জঘন্যতম দৃষ্টান্ত স্থাপনে কক্সবাজারে আলাদা রাষ্ট্র প্রতিষ্টার চেষ্টায় রোহিঙ্গারা। রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হাসপাতাল নয়, যেনো এক একটি রোহিঙ্গা প্রজনন কেন্দ্র। সমুদ্রের পানির উচ্চতা ঝুঁকিতে ‘বিশ্ব’ ও ‘বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চল’। মধ্যপ্রাচ্যের ‘ক্যান্সার খ্যাত’ ইসরাইল রাষ্ট্রের উভ্যূদয় ও রোহিঙ্গা জনগোষ্টির ‘স্বাধীন রাষ্ট্র’ স্বপ্ন ও বাস্তবতা রোহিঙ্গা সমাস্যা’ যা বাংলাদেশের গোঁদের উপর বিষফোঁড়াঃ একটি পর্যালোচনা। প্রেক্ষাপটঃ তৈল বিদ্যার তেলেসমাতি–যার প্রভাবে বর্তমান পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রে ত্রাহি ত্রাহি ভাব! বাজার নিয়ন্ত্রণ, মিথ্যার বেসাতি আর গোল খাওয়া পাবলিক ইসলামিক ‘রোজা’ ও বৈজ্ঞানিক ‘অটোফেজি’ শব্দের অর্থ, সাদৃশ্য ও বৈসাদৃশ্য। উখিয়া ভুঁইয়া ফাউন্ডেশন কর্তৃক মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা, ঈদ পুর্ণমিলন ও বীচ ফুটবল খেলা সম্পন্ন।

বিদ্যুতের লোডশেডিং নিয়ে ডিজিএম পল্লীবিদ্যুৎ উখিয়ার সাথে আইকন নিউজ টুডে ডট কম সম্পাদক ও প্রচারকের স্বাক্ষাৎকার

AnonymousFox_bwo / ১৬৯ মিনিট
আপডেট বুধবার, ৬ এপ্রিল, ২০২২

পল্লীবিদ্যুৎ উখিয়ার সম্মানিত ডিজিএম-জনাব ইব্রাহিম সাহেবের সাথে আইকন নিউজ টুডে ডট কম সম্পাদক ও প্রকাশক এম আর আয়াজ রবির এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারঃ

আইকন নিউজ টুডে পরিবারের পক্ষথেকে আপনাকে স্বাগতম।

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ আপনাদেরকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি।

আইকন নিউজ টুডেঃ উখিয়ায় চলছে মারাত্মক লোড শেডিং, পবিত্র রমজান ও গরমে মানুষের নাভিশ্বাস- কারণ কী?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ উখিয়াবাসীর প্রতি আমি দুঃখ প্রকাশ করছি। কারন আমাদের বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডে যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী গ্যাস সরবরাহ কার্যক্রমে বিঘ্ন ঘটায়, চাহিদা ও লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী বিদ্যুৎ উৎপাদন করা সম্ভবপর হচ্ছে না বিধায় সারা দেশে বিদ্যুৎ সরবারাহের ঘাটতি রয়েছে। উক্ত কারনে সারাদেশের ন্যায় উখিয়াতে চাহিদা মোতাবেক বিদ্যুৎ না পাওয়ায় আমাদেরকে লোড ঘাটতি বিদ্যুৎকে বিভিন্নভাবে লোড শেড দেখিয়ে সমন্বয় করতে হচ্ছে বিধায় শত ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও উখিয়াবাসীকে বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে পারছি না। এটা সাময়িক বিদ্যুৎ সরবরাহে ঘাটতি বিধায়, উখিয়াবাসীকে একটু ধৈর্য ধারন করার পরামর্শ থাকবে। আমরা পাবলিক সেন্টিমেন্ট বুঝি। জনগনের মাঝে ক্ষোভ ও বেদনা থাকবে সেটা আমরাও অনুভব করছি কিন্তু যেটি দূর্ঘটনাজনিত সমাস্যা, সেখানে আমাদের যেমন হাত নেই, তেমনি সাধারনকে একটু ধৈর্য ধারন করতে হবে বৈকি।

আইকন নিউজ টুডেঃ উখিয়ায় পল্লীবিদ্যুতের ভোক্তাদের মনে চাপা দারুণ ক্ষোভ, যে কোন মুহুর্তে গন বিস্ফোরণ হবার সম্ভাবনা আছে- এ ব্যাপারে আপনাদের সতর্কতামূলক কোন প্ল্যান বা সাধারনকে বুঝানোর কোন যুক্তিযুক্ত কারণ আছে কী?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ আমরা আপনাদের মাধ্যমে ভোক্তা ও সাধারণ জনগনকে আশ্বস্ত করতে চাই, দূর্ঘটনা জনিত সমাস্যাটি দ্রুত সমাধানের কাজ চলছে।আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে আমরা উখিয়াবাসীকে দুঃখ, ক্ষোভ ও সাময়িক অসুবিধা লাঘব করতে পারব। আমরা উখিয়াবাসীর প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস স্থাপন করছি-সম্মানিত ভোক্তাদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ ও অসন্তোষ থাকলেও তারা মারমুখী আচরন কখনও করবেন না। তাই সতর্কতামুলক প্ল্যান আমরা রাখি না। উখিয়াবাসী রাষ্ট্রের বৃহত্তর স্বার্থকে সমুন্নত রাখতে কোনভাবেই তারা বিশৃঙ্খল আচরণ করবেন না, তা আমাদের আস্থা ও বিশ্বাস রয়েছে।

আইকন নিউজ টুডেঃ ডিজিএম হিসেবে আপনি দায়িত্ব পালন করেছেন মাস তিনেক হচ্ছে-পুর্বের ডিজিএম মোর্শেদ সাহেব উখিয়াকে ট্যাকনিক্যালী হ্যান্ডেল করেছিলেন বলে গন অসন্তোষ ছিল না, তাহলে আপনার কোন সমাস্যা হচ্ছে কি না?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ জ্বি, আমি জয়েন করেছি, মাস তিনেক হচ্ছে। আমার জয়েন হবার তিন মাসের মধ্যে বিদ্যুৎ উৎপাদনে এরুপ কোন বড়ধরনের ঘাটতি হয়নি, তাই লোড শেডিং ইতিমধ্যে তেমন হয়নি বললেও চলে। গত কয়েক বছরেও যেহেতু এরুপ ঘটনা ঘটেনি, তাই এখানে নতুন পুরাতন ডিজিএম এর প্রশ্ন নয় বা পরিস্থিতি ট্যাকলের ব্যাপারও নয় কিন্তু। এখন যেটা চলছে এটি বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিবিয়ানা গ্যাস ফিল্ডে সমাস্যা হবার কারনে পর্যাপ্ত গ্যাস সরবরাহের ঘাটতি থাকায় চাহিদা মোতাবেক বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিঘ্ন ঘটার কারনে।
আমি দায়িত্ব ভার গ্রহন করার পরে গ্যাসফিল্ডে যান্ত্রিক ত্রুটি, ভোক্তাদের চাহিদা মত বিদ্যুৎ সরবরাহ দিতে অক্ষম হলে একটু বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়তে হচ্ছে, যা অচিরেই কেটে যাবে বলে মনে করি।

আইকন নিউজ টুডেঃ ভয়াবহ বিদ্যুতের লোড শেডিং হবার আসল কারন কী? আপনি গত কয়েক বছরের বিদ্যুতের চাহিদার পরিসংখ্যান যদি একটু উল্লেখ করতেন, প্লীজ

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ আমি ইতিমধ্যে উল্লেখ করার চেষ্টা করেছি, বিবিয়ানা গ্যাসফিল্ডে গ্যাস উৎপাদনে বাধাগ্রস্ত হবার কারনে বিদ্যুৎ উৎপাদনের যে লক্ষ্যমাত্রা তা উক্ত যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে যথাযথভাবে সরবরাহ দিতে না পারার কারনে লোড শেডিং এর এ বিপর্যয়। তাছাড়া আমাদের উখিয়াতে গত বছরে বিদ্যুতের চাহিদা ছিল ২০ মেগাওয়াট কিন্তু এ বছরে চাহিদা বেড়ে হয়েছে ৩২ মেগাওয়াট। অন্যদিকে বিবিয়ানা গ্যাসফিল্ডে যান্ত্রিক ত্রুটির কারনে চাহিদা মোতাবেক বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছেনা, যার প্রভাব সারা দেশের ন্যায় উখিয়াতেও পড়েছে। এছাড়া পবিত্র রমজান মাসে বিদ্যুতের চাহিদা যেমন বাড়ে, তেমনি সেচ মৌসুমে জমিতে পানি সেচের কারনেও বৈদ্যুতিক চাহিদা খুবই বেশি থাকে। তাছাড়া গরম মৌসুমে ফ্যান, এসি, রেফ্রিজারেটর ও অন্যান্য গৃহস্থালি কাজেও বিদ্যুতের ব্যবহার বেড়ে যায়। অন্যদিকে আমরা জাতীয় গ্রীড থেকে বিদ্যুৎ সরবরাহ চাহিদার তুলনায় কম পাচ্ছি, যা লোড শেডিং এর মাধ্যমে আমাদের সমন্বয় করতে হচ্ছে।

আইকন নিউজ টুডেঃ একটি অভিযোগ প্রায়ই শুনা যায়, পল্লীবিদ্যুৎ অফিস দালালের দৌরাত্ম বা দালালদের আখড়া-কথাটি আপনি কিভাবে মুল্যায়ন করবেন?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ পল্লী বিদ্যুৎ অফিস তাদের নিজস্ব নিয়ম কানুন মেনে চলে পরিচালিত হয়। আমাদের লক্ষ্য উখিয়ার প্রতিটি পরিবারে বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করা। এটি রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্টান হিসেবে নিজস্ব আইন কানুন, নিয়ম নীতি আছে যা সরকারের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। তাই এখানে অনিয়ম করার কোনপ্রকার সুযোগ নেই। পল্লীবিদ্যুৎ অফিসে দালালের যেমন স্থান নেই তেমনি লাল ফিতার বন্দী ফাইলেরও কোন সুযোগ নেই। আমরা চেষ্টা করি আমাদের সীমিত জনবল, সুযোগ সুবিধায় আম জনতার বৃহত্তর কল্যাণে কাজ করা।এভাবেই আমরা এগিয়ে যাচ্ছি ইনশাআল্লাহ। তাই দালাল ও লাল ফিতার দৌরাত্ম বিষয়টি অমুলক।

আইকন নিউজ টুডেঃ প্রায়শঃই শুনা যায়, ‘পল্লীবিদ্যুৎ অফিস শক্তের ভক্ত নরমের যম’- কথাটি কিভাবে মুল্যায়ন করবেন?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ ইতিপুর্বে উক্ত প্রশ্নের উত্তর দেবার চেষ্টা করেছি। তারপরেও বলব, উখিয়া পল্লীবিদ্যুৎ অফিস নিজস্ব নিয়মে চলে। এখানে শক্ত ও নরম বলতে কোনকিছুর অস্তিত্ব নেই। আমরা আমাদের অফিসিয়াল সিস্টেমের ব্যত্যয় যেখানেই দেখি, সেখানে শক্ত নরমের কোন প্রশ্ন নেই, নিয়মের মধ্যে থেকে৷ শক্তহাতে একশনে যায়।

আইকন নিউজ টুডেঃ উখিয়া হচ্ছে বিশ্বের সর্বাধিক ঘনবসতিপূর্ণ এলাকা। উখিয়া প্রায় ৪ লাখ লোকের জনসংখ্যা, সাথে পার্শ্ববর্তী দেশের প্রায় ৮ লাখ রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা। অত্র এলাকার বিদ্যুতের চাহিদা ও যোগানের আসলেই ভারসাম্য অবস্থা আছে কী?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ জ্বি, উখিয়া উপজেলা স্থানীয় ও রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীসহ অনেক মানুষের বসবাস। তাই বিদ্যুতের চাহিদাও সেভাবে স্থির করা। কিন্তু গত বছর উখিয়াতে বিদ্যুতের চাহিদা যেখানে ২০ মেগাওয়াট সেখানে বর্তমানে প্রায় ৩২ মেগাওয়াট-প্রায়ই পুর্বের চেয়ে ৫০% বিদ্যুতের চাহিদা বাড়লেও আমাদের সরবরাহ সেভাবে বাড়েনি।তাছাড়া বিদ্যুৎ উৎপাদনে নানা জটিলতা আমাদের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বেগ পেতে হচ্ছে, তা অস্বীকার করার কোন সুযোগ নেই।

আইকন নিউজ টুডেঃ উখিয়াবাসীর জন্য আপনার কোন ম্যাসেজ আছে কী?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ জ্বি, উখিয়াবাসীর জন্য ম্যাসেজ হচ্ছে প্লীজ৷ আপনারা একটু ধৈর্য ধারণ করুন।বিদ্যুৎ উৎপাদনে সাময়িক ঘাটতি এটি একটি রাষ্ট্রীয় সমাস্যা, যা অচীরেই ঠিক হয়ে যাবে। সরকারের আন্তরিকতার কোনপ্রকার ঘাটতি নেই। দ্রুত গতিতে যান্ত্রিক মেরামতের কাজ চলছে। আশাকরি দ্রুততম সময়ের মধ্যে আমরা সুখবর দিতে পারব।
আর উখিয়াবাসীর প্রতি অনুরোধ থাকবে অপ্রয়োজনীয় বিদ্যুৎ ব্যবহারে বিরত থাকতে কারণ বিদ্যুতের অপচয় রোধ করা উচিত কারণ এটি একটি জাতীয় সম্পদ। স্রচের কাজে যে বিদ্যুৎ ব্যবহার হয়, তা যেন পিক আওয়ার অর্থাৎ বিকাল ৫ টা থেকে রাত ১১ টার মধ্যে মটর বা ভারি বৈদ্যুতিক যন্ত্র চালু না রেখে ঐ সময়ে গৃহস্থালি প্রয়োজন মেটানোর জন্য সুযোগ প্রদান করে, পরে অফ পিক আওয়ারে চালু রাখার পরামর্শ থাকল।
আইকন নিউজ টুডেঃ বিদ্যমান লোড শেডিং কতদিনের মধ্যে আয়ত্বে আসবে বলে আপনাদের কাছে তথ্য, উপাত্ত আছে? কতদিনে আপনারা উখিয়াবাসীকে সুখবর দিতে পারবেন?

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ বিবিয়ানা গ্যাসফিল্ডে যান্ত্রিক ত্রুটি সমাধানের চেষ্টা চলছে। আমরা আশা করছি দ্রুততম সময়ের মধ্যে তা সমাধান হবে। কতদিন লাগবে তার দিনক্ষণ এভাবে দেওয়া হয়ত সম্ভব নয় তথাপি সপ্তাহ তিনেক হয়ত সময় লাগতে পারে বলে আমরা ধারনা করছি।

আইকন নিউজ টুডেঃ আমাদেরকে সময় দেবার জন্য আপনাকে অনেক ধন্যবাদ

পল্লীবিদ্যুৎ ডিজিএমঃ কষ্ট করে আমার অফিসে এসে সাক্ষাৎকার নেবার জন্য আপনাদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর....