• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৪৩ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত উখিয়া স্পেশালাইজড হসপিটাল এ জনপদের চাহিদা, আশা-আকাঙ্ক্ষা পুরণে সক্ষম? নাকি শুধুই গতানুগতিক! ফেসবুকে পরিচয় ও প্রেম-অতপরঃ এক কলেজ শিক্ষিকাকে কলেজ ছাত্রের বিয়ে!

উখিয়া সদর নিউমার্কেট এলাকায়, ৮টি দোকান পুড়ে ছাই! কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতির অনুমান।

AnonymousFox_bwo / ৮০ মিনিট
আপডেট শুক্রবার, ২৭ মে, ২০২২

এম আর আয়াজ রবি, উখিয়া-কক্সবাজার।

উখিয়া সদর ফরেস্ট রোড় এলাকায় ভয়াবহ আগুনে ৮টি দোকান ভস্মীভূত। প্রায় কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা অনুমান করেন।

আজ ২৭-শে মে-২২ তারিখ ভোর ৪.৩০ টায় উক্ত দূর্ঘটনা সংঘটিত হয়। স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, রতন সেনের মুদির দোকান থেকে বৈদ্যুতিক শকট (শক্ট) সার্কিট থেকে উক্ত অগ্নুৎ্পাতের সুত্র হয় বলে জানা যায়।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতে জানা যায়, খুব সকালে বৃষ্টি ও ঘন ঘন আকাশে বিদ্যুৎ চমকানোর সময় উক্ত ঘটনা সংঘটিত হয়। এ ব্যাপারে প্রত্যক্ষদর্শী, ইমু মটরস এর স্বর্তাধিকারী নাসির উদ্দিন বাদশা অত্র প্রতিবেদককে জানান,’ ভোর সাড়ে ৪ টার দিকে স্থানীয় দারোয়ানের ফোনের প্রেক্ষিতে মোটর সাইকেল যোগে ঘটনাস্থলে চলে আসি। এসে দেখি রতনের মোদির দোকানে দাউ দাউ করে আগুন জ্বলছে। আমি মোটর সাইকেলযোগে পল্লীবিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে তাড়াতাড়ি বিদ্যুৎ বন্ধ করে দেবার কথা বলে, দ্রুত ফায়ার সার্ভিসে গিয়ে তাদের অবহিত করি। সাথে সাথে ফায়ার সার্ভিসের জোয়ানরা এসে প্রায় ৩ ঘন্টার প্রানান্তর চেষ্টায় আগুন নেভাতে সক্ষম হয়’। তিনি আরও যোগ করেন, ‘ফায়ার সার্ভিসের কৌশলী কার্য্যে, দ্রুত তৎপরতায়, খুব ঝুঁকি নিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন। তাদের কারনে উখিয়া ষ্টেশনের অধিকাংশ দোকান পুড়ে ক্ষয়ক্ষতি হতে রক্ষা পায়’।

স্থানীয় ইসলামী ব্যাংকের ইনচার্জ মোঃ ইসমাইল জানান, ‘ সকাল ৫টার দিকে ফেসবুকের মাধ্যমে জানতে পারলাম উখিয়া সদরে আগুনের লেলিহান শিখায় নিউমার্কেট এলাকায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। আমি দ্রুত ঘটনাস্থলে চলে এসে দেখতে পেলাম, সত্যিই আগুনে অনেক দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমি অবস্থা দেখে খুব ভয় পেয়ে গেছি। আমি ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের আন্তরিকতার সাথে কাজ করতে দেখেছি। স্থানীয় মানুষের সহযোগিতায় খুব দ্রুততম সময়ের মাধ্যমে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে সক্ষম হয়। আমি মনে করি ফায়ার সার্ভিসের সদস্যদের ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় উখিয়াবাসী বড় ঘটনা থেকে রক্ষা পায়। আমার ব্যাংক ঘটনাস্থল থেকে ১০০ ফুট দূরে ছিল। ফায়ার সার্ভিসের ও স্থানীয়দের কারনে, আল্লাহর রহমতে আমার ব্যাংকসহ অনেক দোকান রক্ষা পায়’।

অত্র প্রতিবেদক সরেজমিনে জানতে পারেন, আগুনে ক্ষয়ক্ষতি হয়ে যাদের দোকান পুড়ে গেছেন তারা হচ্ছেন,
০১. রতন সেনের মোদির দোকান ( পুরো পুড়ে ছাই)
০২.সেলিমের চায়ের দোকান ( পুরো পুড়ে ছাই)
০৩.আব্দু রহিমের ফার্মেসী ( পুরো পুড়ে ছাই)
০৪. জহিরের কুলিং কর্নার ( পুরো পুড়ে ছাই)
০৫. নুর আলী মৌলভীর স্টোর ( পুরো পুড়ে ছাই)
০৬. সুরুত আলমের ফার্মেসী ( পুরো পুড়ে ছাই)
০৭. ওসমানের ফল বিতান ( পুরো পুড়ে ছাই)
০৮. আলমগীরের মিষ্টিবন ( আংশিক পুড়ে ছাই)

ভুক্তভোগী ফাহিমা মেডিকোর স্বত্বাধিকারী ছুরুত আলম কান্নাজড়িত কন্ঠে জানান, ‘ ভোর ৫ টার দিকে ভাগিনা ঈসমাইলের ফোনে জানতে পারলাম আমার দোকানে আগুন ধরে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমি দ্রুত এসে দেখি আমার দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। আমার প্রায় ৮/১০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়। আমার আয়ের কোন উৎস নেই। এই দোকানের আয় থেকেই দুই ছেলে মেয়ের পড়ালেখা ও পারিবারিক ব্যয় ভার বহন করে আসছি। এখন আমার কি হবে ভাইয়া!’

আরেক ভুক্তভোগী মোলভী নুর আলী জানান, ‘ ভাই আমি সর্বশান্ত হয়ে গেছি। আমি কিভাবে স্ত্রী, ছেলেমেয়েদের নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করব আল্লাহই জানেন। আল্লাহ আমাকে কেন এত পরীক্ষায় ফেললেন? আমি কি দোষ করেছি। আমার দোকানে প্রায় ১৮/২০ লাখের জিনিসপত্র ছিল। সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এখন আমার কি হবে? আমি প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করছি’।

ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা অকস্মাৎ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষয়ক্ষতি পুষিয়ে উঠার জন্য প্রশাসন, এনজিও ও আই এনজিও কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা ও দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....