• বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৭:২৭ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
বিএমএসএফ কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্দ্যোগে ১৫-ই আগষ্ট উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল সম্পন্ন। নারী চিকিৎসককে গলা কেটে হত্যা, কথিত প্রেমিক কক্সবাজারের রেজা চট্টগ্রামে আটক ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত

রাঙ্গুনীয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের ৪ সন্তান‌ই বুয়েট শিক্ষার্থী!

AnonymousFox_bwo / ৫৩ মিনিট
আপডেট সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২

আইকন নিউজ ডেস্কঃ

চট্রগ্রাম জেলার রাঙ্গুনিয়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকের ৪ সন্তানই বুয়েটের শিক্ষার্থী। এই সন্তানদের গর্বিত পিতা হলেন মরিয়ম নগর কাটাখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সম্মানিত প্রধান শিক্ষক জনাব আমিনুর রহমান। তা‌র সন্তানরা ছাড়াও দুই মেয়ের মধ্যে একজন ঢাকা পিজি হাসপাতালের ডাক্তার অন্যজন দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। নিঃসন্দেহে এটি প্রশংসনীয় ও গৌরবের বিষয়।যেখানে বর্তমানে একজন মেধাবী সন্তানকে বুয়েটে পড়নো কঠিন, সেখানে একে একে চার সন্তান বুয়েটের শিক্ষার্থী।
পরিবারের ৩য় শিক্ষার্থী হাসান মাসুম এর টাইম লাইন থেকে হুবহু। বুয়েট এর সাথে আমাদের পরিবার এর পরিচয় ২০০৯ থেকে আমার বড় ভাইয়া Hasan Monir (EEE’09) যখন চান্স পায়। তখন ভাইয়ার ভর্তি সময় আমরা সবাই ঢাকা আসি। ছোট ছিলাম অনেক বেশি কিছু মনে নাই। তবে ভাইয়ার ভর্তির দিন বুয়েট মেডিকেল সেন্টার এর সামনে এক আন্টির সাথে আম্মু যখন কথা বলছিল তখন ওনার একটা কথা এখনও মনে আছে “ছোটরা বড়দের পথেই যায়” । আন্টি হয়ত কথার কথা বলছিল কিন্তু মনে হয় আজকে ঐ কথাটা সত্যি হল। বড় ভাইয়াকে যা কষ্ট করতে দেখেছি তখন এত কষ্ট করে ভাইয়ার মতো হওয়ার কথা ভাবতেই ভয় লাগতো। আমি নিজে বুয়েটে পড়ার সপ্ন দেখা শুরু করি যখন মেজ ভাইয়া Hasan Murad (CSE’13) বুয়েটে চান্স পায়। ভাইয়া যখন কোড করে রান দিত তখন আউটপুট দেখে সেই মজা লাগতো।

বড় ভাইয়ারা বুয়েটিয়ান হওয়ায় আমার নিজের উপর অনেক প্রেশার ছিল। সারাদিন চিন্তা করতাম চান্স না পাইলে কি কি হইতে পারে। তবে আগের ৩ জন বুয়েটিয়ান বড় ভাই থাকায় আমার চেয়ে মামুনের উপর প্রেশার আর এক্সপেকটেশন ছিল। স্কুলে ওর যা অবস্থা ছিল আর কলেজের শুরুতে যা ফাকিবাজি করছে আমি একটু ভয়ে ই ছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ এই প্রেশারটা ও নিতে পারছে এবং আমাদের legacy ধরে রাখছে (যদিও merit position top 100 এ থাকারটা রাখতে পারে নাই)।

আমার আব্বু আম্মু নিজেরা ইউনিভার্সিটিতে পড়ার সুযোগ সুবিধা পান নি ওনাদের সময়ে। কিন্তু এমন একটা গ্রাম থেকে ওনারা আমাদের এতদূর আনার স্বপ্ন দেখেছেন যেখানে সবাই SSC/HSC পাশ এর পরই গন্তব্য বিদেশ (দুবাই/কাতার/ওমান….)। আমার সবাই গর্বিত ওনাদের স্বপ্ন বাস্তব করতে পেরে।

ছবিতে বাম থেকে ডান
Hasan Monir – EEE ‘09
Hasan Murad- CSE ‘13
Hasan Masum(me) – CSE ‘18
Hasan Mamun – EEE ‘21


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....