• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৮:১২ পূর্বাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
ভোটার প্রক্রিয়ায় রোহিঙ্গা অধ্যুষিত সীমান্ত এলাকার জন্য ইসি সচিবালয় কর্তৃক ঘোষিত নির্দেশিকা। কক্সবাজার জেলার শ্রেষ্ঠ অফিসার ইন চার্জ মনোনীত হয়েছেন’ উখিয়া থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী নাদিম আবাসিক হোটেলে মিলল এক নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ, কথিত স্বামী পলাতক। বনের জন্য কক্সবাজার হবে মডেল জেলা-প্রধান বনসংরক্ষক কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সন্ত্রাসীদের গুলিতে হেড মাঝিসহ ০২জন নিহত। আর্থিক খাতে লুটপাটের দায় জনগণ শোধ করবে কেন? মাদক ও ইয়াবার বিরুদ্ধে চলমান অভিযান অব্যাহত রেখে তরুণ সমাজকে রক্ষা করুণ । কক্সবাজার জেলা বিএমএসএফ এর জরুরী সভা অনুষ্ঠিত উখিয়া স্পেশালাইজড হসপিটাল এ জনপদের চাহিদা, আশা-আকাঙ্ক্ষা পুরণে সক্ষম? নাকি শুধুই গতানুগতিক! ফেসবুকে পরিচয় ও প্রেম-অতপরঃ এক কলেজ শিক্ষিকাকে কলেজ ছাত্রের বিয়ে!

অন্তঃসত্বা স্ত্রীকে ডাক্তার দেখাতে গিয়ে ট্রাকচাপায় স্বামী-স্ত্রী ও এক সন্তান নিহত!!

AnonymousFox_bwo / ৯৪ মিনিট
আপডেট শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০২২

কিন্তু গর্ভের সন্তান অলৌকিকভাবে বেঁচে গেল! রাখে আল্লাহ মারে কে? মারে আল্লাহ রাখে কে?

আইকন নিউজ ডেস্কঃ

দুর্ঘটনায় নিহত মা, পেট ফেটে বেরিয়ে এলো জীবিত নবজাতক-যা মহান আল্লাহর কুদরতির এক নিদর্শন!

সুত্রে প্রকাশ, জাহাঙ্গীর আলম (৪২) পেশায় একজন  কৃষক। বাড়ি ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার রায়মনি এলাকায়। আজ শনিবার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রত্না বেগমকে (৩২) নিয়ে এসেছিলেন ডাক্তার দেখাতে। সঙ্গে ছিল ছয় বছরের মেয়ে সানজিদা। কিন্তু সড়ক পার হওয়ার সময় ট্রাকচাপায় প্রাণ হারান তাঁরা। দুর্ঘটনাস্থলেই জন্ম হয় এক মেয়ে নবজাতকের। নবজাতক যখন পৃথিবীতে এল, তখন দুর্ঘটনায় পরপারে বাবা-মা-বোন!

আজ শনিবার বেলা তিনটার দিকে ত্রিশাল উপজেলার কোর্ট ভবন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনায় জাহাঙ্গীর, রত্না ও শিশু সানজিদা প্রাণ হারালেও বেঁচে যায় সদ্যোজাত নবজাতক। নবজাতক ভালো আছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

নবজাতক নিয়ে হাসপাতালে হাসপাতালে ছুটোছুটি করেন জাহাঙ্গীরের স্বজনেরা। দুর্ঘটনার পরপরই প্রথমে তাকে ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়। এরপর ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও পরে ময়মনসিংহ নগরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়। স্বজনদের ভাষ্য, চিকিৎসার প্রয়োজনে ও চিকিৎসকদের পরামর্শে তাঁরা বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছেন।

সন্ধ্যা সোয়া ছয়টায় ময়মনসিংহের কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গিয়ে কথা হয় নবজাতকের মামি রোজিনা আক্তার, চাচা আরিফ রব্বানী ও প্রতিবেশী মো. শাহজাহানের সঙ্গে। তাঁরা জানান, বিকেলে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পর সেখানে ব্যাপক ভিড় দেখে তাঁরা নবজাতককে প্রায় ১০ কিলোমিটার দূরে কমিউনিটি বেজড হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখান থেকে চিকিৎসকের পরামর্শে হাতের প্লাস্টার করানোর জন্য নগরের বেসরকারি লাবিব হাসপাতালে নিয়ে যান। পরে আবার কমিউনিটি বেজড হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক করিম খান প্রথম আলোকে বলেন, নবজাতক তাঁদের হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সে ভালো আছে। আগামীকাল রোববার প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে বোর্ড গঠন করে তার চিকিৎসা দেওয়া হবে।

নিহত জাহাঙ্গীরের স্বজনেরা জানান, রত্না বেগমের আলট্রাসনোগ্রাম করানোর জন্য ত্রিশালের একটি বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে এসেছিলেন জাহাঙ্গীর। সেখান থেকে বের হওয়ার পর সড়ক পার হতে গিয়ে ট্রাকচাপায় পরিবারের তিনজন নিহত হয়। পেশায় কৃষক জাহাঙ্গীরের স্ত্রী রত্না ছিলেন গৃহিণী।

ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাঈন উদ্দিন প্রথম আলোকে বলেন, দুর্ঘটনার পর থেকেই ট্রাকের চালক পলাতক। এ ঘটনায় আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে বলে তিনি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....