• রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ
এ বছরে নোবেল প্রাইজের জন্য মনোনীত বাংলাদেশী চিকিৎসক রায়ান সাদী কক্সবাজারে ৪২ কোটি টাকায় বনায়ন, নতুন রূপে সাজবে হিমছড়িসহ কক্সবাজার জেলা। পুলিশের প্রশিক্ষণ খাতে এনজিওগুলো শত শত কোটি টাকা অনুদান পেয়েছে : বেনজীর আহমেদ  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গত রাতেও ০১ জন খুন, অস্থিতিশীল অবস্থায় স্থানীয়রাও চরম আতংকে। র‍্যাব-৭ কর্তৃক ২ লক্ষ ৩৮ হাজার ইয়াবাসহ ০৩ জন আটক। র‍্যাব-৭ কর্তৃক ২ লক্ষ ৩৮ হাজার ইয়াবাসহ ০৩ জন আটক। উদ্ধারকৃত ইয়াবার আনুমানিক মুল্য ৬ কোটি। উখিয়া রেঞ্জকর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে উদ্ধারকরা ৩ শতাধিক বক অবমুক্ত করা হয় উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এক রোহিঙ্গা ভলান্টেয়ারকে ধারালো অস্ত্রের আঘাতে নির্মমভাবে খুন। ঘুংধুম সীমান্তে চরম উত্তেজনায় এসএসসি ও সমমানের পরিক্ষার কেন্দ্র পরিবর্তন শাড়ি পরে কলেজে গেল ছেলে, ছবি পোস্ট করলেন ‘গর্বিত’ বাবা!

কক্সবাজার ভোক্তা অধিকারের জরিমানার লাখ টাকা ভাগাভাগি, পরে ফেরত-যেন শস্যের ভিতরে ভূত।

AnonymousFox_bwo / ২৩ মিনিট
আপডেট শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

আইকন নিউজ ডেস্কঃ

ওজনে কম দেওয়ার অভিযোগ এনে জরিমানার টাকা গ্রহণ করলেন ১ লাখ ২০ হাজার টাকা। আর প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষের হাতে রশিদ দেওয়া হলো ২০ হাজার টাকা। অভিযানকারী কর্মকর্তা এবং তার নিজস্ব দালাল ভাগ করে নিলেন ১ লাখ টাকা। এ নিয়ে জানাজানি হওয়ার পর উর্ধ্বতন কর্মকর্তার উপস্থিতিতে ওই কর্মকর্তা ভুক্তভোগীর হাতে ফেরতও দিলেন ১ লাখ টাকা।

আর এমন ঘটনাটি করেছেন জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারি পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন।

বৃহস্পতিবার (৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে কক্সবাজার প্রেসক্লাব কার্যালয়ে এসে জরিমানার টাকা আত্মসাতের বিষয়টি জানান ভুক্তভোগী রামুস্থ নাহার ফিলিং স্টেশনের ম্যানেজার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ। এসময় তিনি জরিমানা টাকা আত্মসাতের বিষয়ে প্রমাণাদি হিসেবে মুঠোফোনের কল রেকর্ড এবং ভিডিও চিত্রও দেন।

ভুক্তভোগী রামুস্থ নাহার ফিলিং স্টেশনের ম্যানেজার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ বলেন, ” গত ৬-ই সেপ্টেম্বর ( মঙ্গলবার) দুপুর ২টা ১৫ মিনিটে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন নেতৃত্বে একটি দল নাহার ফিলিং স্টেশনে আসে। এসময় তার সঙ্গে কিছু আনসার সদস্য আর রিদুয়ান নামের একব্যক্তি ছিলেন। পরে সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন একটি জ্বালানি তেলের পরিমাপ যন্ত্র নিয়ে পরিমাপ করেন এবং সামান্য ক্রটি রয়েছে বলে ফিলিং স্টেশন বন্ধ করে দেয়। পরে অফিসে যোগাযোগের জন্য বলা হয়”।

তিনি আরও যোগ করেন, “এরপর একইদিন মঙ্গলবার (৬ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় তাদের কথা মতো জেলা কার্যালয়ে আসলে সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন অফিসে ছিলেন না। পরবর্তীতে মুঠোফোনে কল করলে সহকারি পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন ১ লাখ টাকা রিদুয়ানকে এবং ২০ হাজার টাকা অফিসে জমা দিতে বলেন। তারপর রিদুয়ানকে ডেকে তার হাতে ১ লাখ টাকা জমা দেওয়া হয়। আর বাকি ২০ হাজার টাকা অফিসের ভেতরে গিয়ে এক কর্মকর্তার কাছে জমা দিয়ে একটি রশিদ সংগ্রহ করি। পরবর্তীতে অফিসের কর্মকর্তা ২০ হাজার রশিদ দেওয়ায় সন্দেহ লাগে। তাই এর পরদিন বুধবার পুনরায় রিদুয়ানকে ১ লাখ টাকা দেয়ার বিষয়টি মুঠোফোনে কথোপকথনের মাধ্যমে রেকর্ড করি আর ইমরান হোসাইনের সঙ্গে কথা বলে তারও কল রেকর্ড করি।’

নাহার ফিলিং স্টেশনের ম্যানেজার মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আরও বলেন, “বিষয়টি নিয়ে আজ সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় অতিরিক্ত জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) আবু সুফিয়ান স্যারের কক্ষে আমি ও সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইন যায়। এ সময় প্রথমে মো. ইমরান হোসাইন বিষয়টি অস্বীকার করার চেষ্টা করে। কিন্তু পরবর্তীতে কল রেকর্ড শুনার পর ১ লাখ টাকা নেওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। তার মধ্যে রিদুয়ানকে ১০ হাজার টাকা এবং মো. ইমরান হোসাইন ৯০ হাজার টাকা নেন বলেও স্বীকার করেন। একইসঙ্গে ১ লাখ টাকাও ফেরত দেওয়া হয়।”

এ ঘটনায় ইমরানের নিজস্ব দালাল হিসেবে পরিচিত মো. রিদুয়ানকে পুলিশের কাছে সোর্পদ করেছে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সুফিয়ান।

তিনি জানিয়েছেন, জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারি পরিচালক মো. ইমরান হোসাইনের বিরুদ্ধে জরিমানার নামে দালালের মাধ্যমে টাকা আদায় করে আত্মাসাৎ করার অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। বিষয়টি আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য মহাপরিচালককে লিখিতভাবে জানানো হচ্ছে।

ঘটনার পর বিষয়টি নিয়ে অভিযুক্ত সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইনের সাথে যোগাযোগ করা হলে সাড়া মেলেনি।

দালাল হিসেবে পরিচিত মোহাম্মদ রিদুয়ানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আসলে সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইনের সাথে ক্যাব প্রতিনিধি হিসেবে তিনি অভিযানে যান। ওখানে অতিরিক্ত টাকা নেওয়ার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন।

পরে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বিষয়টি শুনেছেন। এটি নিয়ে অভিযোগকারী কর্মকর্তার সাথে সরাসরি আলাপ করার জন্য অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

অতিরিক্ত জেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সুফিয়ান বলেন, অভিযোগকারী, দালাল এবং মো. ইমরান হোসাইনের উপস্থিতিতে অভিযোগটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। এ ঘটনায় দালাল রিদুয়ানকে আটক করে পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়েছে। জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত সহকারী পরিচালক মো. ইমরান হোসাইনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে লিখিতভাবে জানানো হচ্ছে। তাই সাধারণ মানুষ মনে করছেন, শস্যের ভিতরে ভূত ঘাকলে সেই ভূত তাড়াবে কেমনে?

আইকন/আর/০৯০৯২২৮.৪৫


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরো খবর....